৩ মাস পার হলেও চরমম্তাজ ইউনিয়নে পৌছায়নি ইউরিয়া সার ! বিসিআইসির সার ডিলারের বিরুদ্ধে ! সার পাচারের অভিযোগ!

৭১বিডি২৪ডটকম | মু.জিল্লুর রহমান জুয়েল;


অভিযোগ


পটুয়াখালী : পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী উপজেলার চরমন্তাজ ইউনিয়নের বিসিআইসি’র সার ডিলার মেসার্স লাহড়ী এন্টার প্রাইজের প্রোঃ মু. ফারুক লাগড়ী’র বিরুদ্ধে সার পাচারের অভিযোগ করেছে উক্ত ইউনিয়নের খুচরা সার বিক্রয় প্রতিনিধিরা।

সরেজমিন ও অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বর্তমান সরকারের অক্লান্ত প্রচেষ্টায় কৃষিজীবীদের জীবনকাল উন্নয়নে সর্বপ্রকার সহযোগীতা করে আসলেও, এ সুযোগে এক শ্রেণীর অসাধুপায়ী ও সার পাচার কারি বিসিআইসি’র সার ডিলার দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ছোট বড় দূর্নীতির প্রতিযোগিতা থাকলেও, তার মধ্যে প্রথম সারীতে, রাঙ্গাবালী উপজেলার চরমন্তাজ ইউনিয়নের বিসিআইসি’র সার ডিলার মেসার্স লাহড়ী এন্টার প্রাইজের প্রোঃ মু. ফারুক লাহড়ী সবাইকে ছাড়িয়ে প্রথম স্থানে বলে স্থানিয়োদের কাছ থেকে জানা যায়। অনুসন্ধানে আরো জানা যায়, চরমন্তাজ ইউনিয়ন দক্ষিনাঞ্চলের নদী ও সাগর মহনা বেষ্টনী দীপের মধ্যে অবস্থিত, যার কারনে দীপাঞ্চলে শত করা ৯৯% প্রান্তিক কৃষক। কৃষি আবাদযোগ্য হওয়ায়, ইরি, আমন ও রবি মৌসুমে ব্যাপক ফলন উৎপাদন হয়ে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে রপ্তানি করে। যার ফলে সরকার পাচ্ছে রাজস্ব আয়। যা বর্তমান বিসিচইসি’র মেসার্স লাহড়ী এন্টার প্রাইজের পোঃ ফারুক লাহড়ীর দূর্নীতির কারনে সরকারী বরাদ্দকৃত সার কৃষকদের মাঝে বিতর না দিয়ে, মোটা অংকের বিনিময়ে সরকারী সার নিতিমালাকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে বিভিন্ন জায়গায় সার বিক্রি ও পাচার করে, আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হলেও, কৃষক ও কৃষি আবাদি হুমকির মধ্যে বলে উর্ধতন কতৃপক্ষের বরাবর লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন স্থানিয়ো খুচরা সার বিক্রয় প্রতিনিধিরা। তারা অভিযোগে জানিয়েছেন, বিগত অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর মোট তিন মাস সরকারী নিয়োমানুযায়ী ইউরিয়া সার বরাদ্দ পেলেও সার ডিলার মালিক ফারুক লাহড়ী খুচরা সার বিক্রয় প্রতিনিধিদের মাঝে নিয়োমানুযায়ী সার বিতরন না করে, বেশি দামে বিক্রি করে কৃষক ও কৃষি আবাদিকে হুমকির মধ্যে ঠেলে দিয়েছে। আর এর প্রভাবে কৃষি আবাদি রবি শস্য এর ব্যাপক ক্ষতির আশংকা করছেন বলে প্রতিবেদকে স্থানিয় প্রান্তিক কৃষক খুচরা সার বিক্রয়ী’রা জানান।

বিভিন্ন সূত্রে অনুসন্ধানে খোজ নিয়ে জানা যায়, মেসার্স লাহরী’ এন্টার প্রাইজের বিরুদ্ধে বিগত দিনেও সার পাচার ও দূর্নীতির কারনে দেশের বিভিন্ন প্রভাবশালী পত্রিকায় প্রকাশিত হলে, উপ পরিচালক কৃষি অধিদপ্তর খামারবাড়ি’র পটুয়াখালী’র উর্ধতন কতৃপক্ষের নির্দেশে তদন্ত করলে, এক পর্যায় বিসিআইসি সার ডিলার মেসার্স লাহড়ী এন্টার প্রাইজের ফারুক লাহড়ীর দূর্নীতি প্রমান পাওয়া গেলে, অপরাধের শাস্তি স্বরুপ ৩ মাস ডিলার লাইসেন্স এর প্রতিমাসের সার বরাদ্ধ স্থগীত করে দেওয়া সহ হোশিয়ারী করে দেয়া হয়, যেন উক্ত ৩ মাসের মধ্যে কোন সার বিক্রয়ে অনিয়ম পাওয়া গেলে, কতৃপক্ষ কঠিন পদক্ষেপ নিবেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়।

কিন্তু কথায় আছে, যে চোরে শুনে ধর্মের কথা! ঠিক পুনরায় ৩ মাসের বরাদ্দকৃত সরকারী সার বিভিন্ন জায়গায় অবৈধ ভাবে সার পাচার ও বিক্রয়ের অভিযোগ পত্র পটুয়াখালী জেলা সার ও বীজ মনিটরিং কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক ও সাধারণ সম্পাদক পটুয়াখালী উপ-পরিচালক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খামারবাড়ী সহ বিভিন্ন দপ্তর বারার দায়ের করেন স্থানিয় চরমন্তাজ ইউনিয়নের খুচরা সার বিক্রয় প্রতিনিধিরা।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মেসার্স লাহড়ী এন্টার প্রাইজের প্রোঃ ফারুক লাহড়ী’র কাছে জানতে চাইলে তিনি কোন প্রশ্নের উত্তর দিতে পারেননি, এক পর্যায় তার এই অপরাধ ও দূর্নীতির সংবাদ প্রকাশিত না ওয়ার জন্য প্রতিবেদককে ম্যনেজ করার ব্যর্থ চেষ্টাও করেন। এ ব্যাপারে উপ-পরিচালক মু.নজরুল ইসলাম মাতাব্বর এর কাছে জানতে চাইলে, ফারুক লাহড়ীর দূর্নীতির উপর তদন্ত কাজ শুরু হচ্চে, অভিযোগ প্রমাণিত হলে সার নিতি মালা অনুযায়ী আইনানুক ব্যাবস্থা নিবেন বলে প্রতিবেদককে জানানা।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *