২৫০ আসনের তালিকা চূড়ান্ত বিএনপির

:: ৭১বিডি২৪ডটকম :: অনলাইন ডেস্ক ::


বিএনপি


এবার প্রার্থী চূড়ান্ত করতে বসেছে বিএনপি। কারাগারে যাওয়ার আগে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার করা জরিপ ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পৃথক জরিপকে সামনে রেখেই প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হচ্ছে। এ নিয়ে স্থায়ী কমিটির দফায় দফায় বৈঠক চলছে। সঙ্গে স্কাইপিতে সরাসরি যুক্ত হচ্ছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও। যুক্তি-পাল্টা যুক্তি দিয়ে অপেক্ষাকৃত যোগ্য প্রার্থীকেই চূড়ান্ত করা হচ্ছে।

সূত্র জানায়, আগামী দুই-এক দিনের মধ্যে প্রার্থী তালিকার খসড়া লন্ডনে দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে পাঠানো হবে। এরপরই চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হবে।

দলের এক শীর্ষ নেতা জানান, গত বছরের ১৬ জুলাই বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যান। সে সময় ৩০০ আসনের একটি সম্ভাব্য তালিকা তারেক রহমানকে দিয়েছিলেন তিনি। সেই তালিকার সঙ্গে বিএনপির পার্লামেন্টারি বোর্ডের তৈরি সংক্ষিপ্ত তালিকা সমন্বয় করে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। এবারে মনোনয়নের ক্ষেত্রে কারও ব্যক্তিগত কোনো সুপারিশ খাটছে না।

জানা যায়, কোথাও কোথাও বিকল্প প্রার্থীও রাখছে বিএনপি। মামলা, ঋণখেলাপিসহ নানা কারণে প্রথম প্রার্থী নির্বাচন করতে না পারলে দ্বিতীয়জনকেই বেছে নেওয়া হবে। তবে শুধুমাত্র প্রথম প্রার্থীকেই দলীয় প্রতীক দেওয়া হবে। বিকল্প প্রার্থী প্রয়োজনে স্বতন্ত্র নির্বাচন করতে পারেন বলে জানা গেছে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক নেতা জানান, সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী সোম-মঙ্গলবারের মধ্যেই প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করা হতে পারে। এবার যে প্রক্রিয়ায় প্রার্থী বাছাই করা হচ্ছে, তা এককথায় অসাধারণ। কারও ব্যক্তিগত কোনো চাওয়া পাওয়া থাকছে না। জিয়া পরিবারের আত্মীয় বলেও কেউ পার পাচ্ছেন না।

তিনি বলেন, সম্প্রতি এক বৈঠকে দিনাজপুরে জিয়া পরিবারের এক আত্মীয়ের পক্ষে সুপারিশ করেন স্থায়ী কমিটির পাঁচ-ছয়জন সদস্য। তারেক রহমান স্কাইপিতে বলেন, তার চেয়েও কোনো যোগ্য প্রার্থী আছেন কি-না। এ সময় ওই ব্যক্তির নাম উল্লেখ করা হলে তারেক রহমান তাকেই সায় দেন। এ ছাড়া বগুড়া জেলার দায়িত্ব তারেক রহমানের হাতে ছেড়ে দেয় বিএনপির স্থায়ী কমিটি। তারেক রহমান বলেন, সারা দেশে আপনারা প্রার্থী নির্ধারণ করছেন, বগুড়াও আপনারাই করবেন। পরে বগুড়ার প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করে বিএনপির স্থায়ী কমিটি।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

 

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *