হাত পেতে নয়, মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে চাই : প্রধানমন্ত্রী

(৭১বিডি২৪) অনলাইন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, “কারো কাছে হাত পেতে নয়, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে চাই। দেশকে এগিয়ে নিতে সকলের সহযোগিতা প্রত্যাশা করছি।”

ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে সোমবার বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, “বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ শুধু বাঙালি জাতির মুক্তির দিক নির্দেশ’ই করেনি। এই ভাষণ ছিল বাঙালি জাতির অর্থনৈতিক ও সামাজিক মুক্তির ডাক। একটি ভাষণে সমগ্র জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন। দীর্ঘ আড়াই হাজার বছর বাঙালি জাতির ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এর আগে অনেকেই মুক্তির ডাক দিয়েছেন, কিন্তু একটি ভাষণে সামগ্রিক মুক্তির ডাক তিনিই প্রথম দিয়েছেন।”

বিশ্বের ১২টি ভাষায় ৭ মার্চের ভাষণ অনুবাদ করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিশ্বের অনেক নেতাই বঙ্গবন্ধুর ভাষণের অনুসরণ করছেন, অনুকরণ করছেন, প্রশংসা করছে বিশ্ব মিডিয়াও। বঙ্গবন্ধুর ভাষণ সাধারণ মানুষ মুক্তিযুদ্ধের সময় গ্রামেগঞ্জে প্রচার করে বেড়াতেন। মুক্তিযুদ্ধে উজ্জীবিত করতে ক্যান্টনমেন্টে বাজানো হত। তার এই ভাষণ ছিল স্বাধীনতার কৌশলী ডাক। অথচ ১৯৭৫ সাল থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত ৭ মার্চের ভাষণ প্রচার করা নিষিদ্ধ ছিল।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট পর জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলায় পাকিস্তানের দোসর যুদ্ধাপরাধীদের ক্ষমতায় বসিয়ে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিলেন দাবি করে শেখ হাসিনা বলেন, “তার’ই (জিয়ার) ধারাবাহিকতায় বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া জ্বালাও-পোড়াও করে নির্বিচারে মানুষ হত্যা করছেন।”

খালেদা জিয়ার জন্ম ভারতে এবং ভালোবাসা পাকিস্তানের প্রতি উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, “বাংলাদেশের স্বাধীনতায় তিনি (খালেদা জিয়া) বিশ্বাস করেন না। এ কারণেই পাকিস্তানের সুরে তিনি মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু এবং শহীদদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।”

বিএনপির নেতৃত্ব নির্বাচন নাটক আখ্যা দিয়ে তিনি আরো বলেন, এতিমের টাকা আত্মসাৎকারী খালেদা জিয়া এবং ২১ আগস্টের অন্যতম আসামি তারেক রহমানকে আবারও নেতৃত্বে এনে জাতির সঙ্গে তামাশা করেছে।

জনসভায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য রাখেন দলটির উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দিপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন মেয়র আনিসুল হক, দক্ষিণের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন প্রমুখ।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *