শীতে ত্বকের সতেজতার ৭টি উপায়

শীতে ত্বকের সতেজতার ৭টি উপায়শীতকালে শুষ্ক শীতল হাওয়া ও বাতাসে বেড়ে যাওয়া ধুলাবালুর কারণে ত্বক হয়ে যায় খসখসে ও মলিন। এর ফলে দেখা দেয় নানা সমস্যা, যেমন ত্বক ফেটে যাওয়া, ত্বকে চুলকানি ইত্যাদি। তাই শীতকালে ত্বকের সুস্বাস্থ্য রক্ষায় দরকার বাড়তি যত্ন ও সতর্কতা। জেনে নিন এ সময়টায় ত্বকের সতেজতা বজায় রাখার কয়েকটি উপায়।

১. পরিচ্ছন্নতা: শীতকালে ত্বক সজীব রাখার মূল মন্ত্রই হলো, নিজেকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা। শীতকালে বাতাসে জলীয়বাস্পের পরিমান কম থাকায় আবহাওয়া শুস্ক হয়ে যায় এবং বাতাসে ধূলিকনার পরিমানও বেড়ে যায়। তাই ত্বকের যত্নের প্রথম ধাপই হচ্ছে, পরিচ্ছন্নতা।

শীতকালে শুষ্ক আবহাওয়ায় ত্বকে টান পড়ে, ফলে কমবেশি সবাই শরীরে ময়েশ্চরাইজার ব্যবহার করে থাকে। আর এজন্য শরীরের ধুলাবালি পরিস্কার রাখতে প্রতিদিন গোসল করাটা প্রয়োজনীয়।

এছাড়া মুখ ফেস ওয়াশ দিয়ে পরিস্কার করার বদলে তুলোয় ক্লিনজিং মিল্ক লাগিয়ে মুখ পরিস্কার করে মুছে নিন। তারপর পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। সাবান যত পারবেন কম ব্যবহার করুন, লিকুইড সোপ ব্যবহার করতে পারেন।

শীতে শরীরের অন্যান্য অংশের যত্ন নিলেও অনেকেই ভুলে পায়ের যত্নের কথা। তাই নজর রাখুন পা ফাটলে একেবারেই ময়লা জমতে দেবেনে না। গরম পানিতে মাইল্ড শ্যাম্পু দিয়ে পা ডুবিয়ে রাখুন। কিছুক্ষণ পর নরম ব্রাশ দিয়ে ঘষে পরিষ্কার করে নিন।

২. ময়েশ্চারাইজিং: এই সময় ময়েশ্চারাইজিং খুবই জরুরি। গোসলের পানিতে কয়েক ফোঁটা গ্লিসারিন দিয়ে সেই পানিতে গোসল করলে ত্বকের আর্দ্রতা বজায় থাকবে। গোসলের পর এবং বাইরে থেকে বাসায় ফিরে হাত, মুখ ধোয়ার পর ভালো করে হালকা কোনো ময়েশ্চারাইজার মুখে, হাতে পায়ে লাগান। ভারী ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে বাইরে বের হবেন না। এতে ধুলো ময়লা শরীরে বসে যাবে।

ফাটা পা পরিস্কার করার পর অবশ্যই ভাল ক্রিম লাগিয়ে শুতে যাবেন। ঠোট ফাটলে অল্প গ্লিসারিন আঙুলে নিয়ে ঠোটে লাগান। সারাদিন লিপ বামের হালকা পরত লাগিয়ে রাখুন।

৩. কনুই, গোড়ালির বিশেষ যত্ন: শুষ্ক গোড়ালি কনুইয়ের জন্য এই সময় খুব ভালো হচ্ছে, ঘরোয়া পদ্ধতি। এক টুকরো লেবুর সঙ্গে চিনি লাগিয়ে কিছুক্ষণ কনুইতে ঘষুন। কিছুক্ষণ রেখে ধুয়ে ফেলুন।

৪. প্যাক: ময়দা, বেসন বা যে কোনো ধরনের প্যাক যা ত্বককে শুষ্ক করে দেয় তা একেবারেই লাগাবেন না। কেননা এ ধরনের প্যাকে ত্বক আরও আর্দ্রতা হারাবে। তার চেয়ে বরং এই সময়ের জন্য উপকারী ফ্রুট প্যাক। কলা আর মধু মিশিয়ে মুখে গলায় লাগান। এই প্যাক ত্বক পরিস্কার যেমন করবে, আর্দ্রতাও বজায় রাখবে আবার উজ্জ্বলতাও বাড়বে।

৫. মেকাপ: যেহেতু এই সময় মেকাপ নষ্ট হয় না তাই সারাদিন মেকাপ করে থাকা যায়। সবসময় ক্রিম বেসড মেকাপ লাগান মুখে। নাহলে ত্বকের সমস্যা দেখা দেবে। লিপস্টিক লাগালে সেটাও যেন ক্রিম বেসড হয়।

৬. খাওয়া দাওয়া: সঠিক খাওয়া দাওয়া ত্বক ভাল রাখতে খুবই জরুরি। প্রচুর মৌসুমি ফল ও শাকসবজি খান। গরম হারবাল চায়ের কোনো তুলনা নেই এইসময়ে। প্রতিদিন সকালে উঠে ১ চামচ মধু খান। ঠান্ডা যেমন লাগবে না, ত্বকের জেল্লা বাড়বে।

৭. পানি: শরীর ভেতর থেকে শুকিয়ে গেলেই তার প্রভাব বাইরে পড়ে। তাই শুষ্ক ত্বকের সমস্যা দূরে রাখতে প্রচুর পরিমানে পানি খান।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *