শিক্ষার্থী সাদিয়া আক্তারকে হত্যার ঘটনায় বিচারের দাবীতে মানববন্ধন

৭১বিডি২৪ডটকম ॥ করেসপন্ডেন্ট;


মানব্বন্ধন


বরিশাল : বরিশাল নগরের অক্সফোর্ড মিশন রোডস্থ বাংলাদেশ ইনিষ্টিটিউট অব হেলথ এন্ড টেকনোলজীর মেধাবী শিক্ষার্থী সাদিয়া আক্তার (২১ কে নৃশংসভাবে হত্যার ঘটনায় বিচারের দাবীতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০ টায় নগরের অশ্বিনী কুমার হলের সামনে সড়কে এই মানববন্ধনের আয়োজন করে ওই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মচারীবৃন্দ। মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব হেলথ এন্ড টেকনোলজীর অধক্ষ ডা. মো. নজরুল ইসলাম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কালাম আজাদ, শিক্ষক ডা. জাফর হোসেন, ডা, ফরিদউদ্দিন সহ অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষর্থী-কর্মচারীরা। এসময় তারা এই নৃশংস হত্যাকান্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। উল্লেখ্য গত ১৯ নভেম্বর বরিশাল নগরীর ডেফুলিয়া এলাকার বাসিন্দা আলমগীর খানের মেয়ে সাদিয়া আক্তার বাসা থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়ে আর বাসায় ফেরেনি। এরপর ২২ নভেম্বর এ ঘটনায় বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানায় জিডি করেন তার বাবা আলমগীর খান। পরর্বতীতে পুলশি তদন্তে নমেে তথ্য পলেে নঁিখোজরে বাবা আলমগীর নারী ও শশিু নর্যিাতন দমন আইনে ২ ডসিম্বের একটি মামলা দায়রে করনে। মামলার সূত্র ধরইে ২ ডসিম্বের তদন্তকারী র্কমর্কতা এসআই আব্দুল মঠবাড়য়িা থানা পুলশিরে সহযোগীতায় অভযিান পরচিালনা করে মো. সিরাজ (২৪) এবং মো. হাফিজ আকন (১৫) নামের দুজনকে আটক করে থানা পুলিশ। তারা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশের কাছে স্বীকার করে, শিক্ষার্থী সাদিয়ার সাথে মোবাইলে প্রেমের অভিনয় করেন। এরপর বাগেরহাটের শ্মরণখোলা উপজেলার রাজাপুর গ্রামের আ.রব হাওলাদারের ছেলে নাজমুল ইসলাম নয়নের (৩০) সহায়তায় সাদিয়াকে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার বড়মাছুয়া এলাকার ডেকে নিয়ে ৩ জন মিলে গণধর্ষণ করে। এসময় সাদিয়া চিৎকার করলে গলা টিপে হত্যা করে বলেশ^র নদীতে ভাসিয়ে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত সাদিয়ার লাশের সন্ধান পাওয়া যায়নি।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *