রাষ্ট্রীয় কারখানায় শ্রমিকদের মজুরি দ্বিগুণ করার প্রস্তাবে অনুমোদন

1530549860_39রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প কারখানার শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি দ্বিগুণ বাড়িয়ে ৮৩০০ টাকা করার প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে সরকার।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার (২ জুলাই) তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠকে ‘জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশন-২০১৫ এর সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিকদের মজুরি-স্কেল ও ভাতা’ অনুমোদন দেওয়া হয়।

সভা শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম একথা জানান।

সচিব বলেন, মন্ত্রিসভার বৈঠকে রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিকদের মজুরি-স্কেল ও ভাতা অনুমোদন এবং পণ্য উৎপাদনশীল রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প প্রতিষ্ঠান শ্রমিক (চাকরির শর্তাবলী) আইন ২০১৮-এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন হয়েছে। জাতীয় মজুরি ও উৎপাদনশীলতা কমিশন ২০১৫-এর সুপারিশের পরিপ্রেক্ষিতে সরকারি মিল কারখানায় কর্মরত শ্রমিকদের বেতন দ্বিগুণ করে এই আইনটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, এই আইনে কমিশন মজুরি-স্কেল ২০১০-এর তুলনায় ১০০ শতাংশ বৃদ্ধি এবং বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট ৫ শতাংশ হারে বাড়ানোর সুপারিশ করে। সুপারিশ অনুযায়ী, সর্বনিম্ন বেতন স্কেল ৪ হাজার ১৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮ হাজার ৩০০ টাকা এবং সর্বোচ্চ বেতন স্কেল ৫ হাজার ৬০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১১ হাজার ২০০ টাকার প্রস্তাব করা হয়েছিল। মজুরি কাঠামোর ২০১০ সালের মতো ২০১৫ সালে করা সুপারিশেও মূল মজুরির ৫০ শতাংশ হারে বাড়ি ভাড়া, চিকিৎসা ভাতা ১ হাজার ৫০০ টাকা, যাতায়াত ভাতা ২০০ টাকা, ধোলাই ভাতা ১০০ টাকা, উৎসব ভাতা দুই মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ, ছুটি নগদায়নে বাৎসরিক অর্জিত ছুটির ৫০ শতাংশ, ফান্ড মূল বেতনের ১০ শতাংশ, টিফিন ভাতা ২০০ টাকা, ২০ শতাংশ হারে নববর্ষ ভাতা, ঝুঁকি ভাতা ৪০০ টাকা, শিক্ষা সহায়তা ভাতা ৫০০ টাকা রাখা হয়েছে। আর নারী শ্রমিকদের মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাস করা হয়েছে।

সচিব আরও জানান, বৃদ্ধি করা মূল বেতন স্কেল ২০১৫ সালের ১ জুলাই থেকে কার্যকর হবে। আর ভাতাগুলো কার্যকর হবে ১ জুলাই ২০১৬ সাল থেকে।

কয়েক বছরের মূল্যস্ফীতিতে জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়ায় শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি বাড়িয়ে ১৬ হাজার টাকা করার দাবি জানিয়ে আসছে শ্রমিক সংগঠনগুলো।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *