মিশরে মসজিদে হামলা, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৮৪

৭১বিডি২৪ডটকম ॥ আন্তর্জাতিক ডেস্ক;


মিশরে মসজিদে হামলা, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৮৪
ছবি : ইন্টারনেট

মিশরের উত্তরাঞ্চলের সিনাই উপত্যকার একটি মসজিদে জুমার নামাজের পর বিস্ফোরিত হওয়া বোমার আঘাতে এবং সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৮৪ জনে দাঁড়িয়েছে। আহত হয়েছেন আরও অন্তত ১২০ জন।

মিশরের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ও বার্তা সংস্থা মিনা (মিডল ইস্ট নিউজ এজেন্সি) দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্রের বরাতে নিহত ও আহতের এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

হামলার পর দেশটির সকল বিশ্ববিদ্যালয় এবং হাসপাতালে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। সিনাই উপত্যকার হাসপাতালগুলোতে নিরাপত্তা বাহিনীর বাড়তি সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে বলে সেখানকার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। হামলার পর কায়রো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। সেখানে ব্যাপক তল্লাশি শুরু হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, জুমার নামাজের পর আল রাওয়াদাহ মসজিদের মুসল্লিদের লক্ষ্য করে কয়েকজন ব্যক্তি গুলি করতে থাকে। সে সময় মসজিদের ভিতর একটি বোমাও বিস্ফোরিত হয়। হামলার পর যখন আহতদের অ্যাম্বুলেন্সে করে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছিল তখন অ্যাম্বুলেন্স লক্ষ্য করেও হামলা চালানো হয়।
কোন সংগঠন এখনও হামলার দায় স্বীকার করেনি।

এদিকে কুয়েতের আমির শেখ শাবাহ আল জাবের আল শাবাহ এই হামলায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। বিপদসঙ্কুল এই পরিস্থিতিতে তিনি মিশরের পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন। মিশরে নিযুক্ত ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত জন ক্যাশন বলেছেন, মসজিদ বা গির্জায় প্রার্তনারতদের উপর এ ধরনের হামলা আমাদের একতাবদ্ধ হওয়ার শক্তিকেই বাড়াবে।

সিনাই উপত্যকার রাফাহ ক্রসিং আগামীকাল শনিবার থেকে ফিলিস্তিনিদের জন্য পুরোপুরি খুলে দেওয়ার কথা ছিল মিশরের। তার একদিন আগেই এই ধরনের হামলা হলো। ফলে এই ক্রসিংটি খুলে দেওয়া অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়তে পারে। অবরুদ্ধ গাজাবাসীর জন্য এটিই বহির্বিশ্বের সাথে যোগাযোগের একমাত্র পথ।

এর আগে ২০১৪ সালে এই উপত্যকায় একই ধরনের হামলায় মিশরের ৩১ সৈন্য নিহত হয়েছিল। তারপর দেশটির প্রেসিডেন্ট আব্দেল ফাত্তাহ আল সিসি সেখানে জরুরি অবস্থা জারি করেন, যা দীর্ঘদিন জারি ছিল। সূত্র: আল জাজিরা, দ্যা ইন্ডিপেন্ডেন্ট।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *