বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে স্মরণশক্তি বাড়ার কিছু পদ্ধতি জেনে নিন !

৭১বিডি২৪ডটকম ॥ অনলাইন ডেস্ক;


বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে স্মরণশক্তি বাড়ার কিছু পদ্ধতি জেনে নিন !


অনেকেরই অনেক সময় অনেক কিছু মনে রাখতে পারে না৷ সবকিছু ভুলে যাওয়াটা একটা রোগের মতো হয় পড়েছে৷ বিশেষ করে বাজারে গেলে বা কোন কিছু কিনতে গেলে এমন ঘটনা প্রায়শই ঘটে থাকে। কারও ক্ষেত্রে কম, কারও ক্ষেত্রে বেশি। সবার মনে রাখার ক্ষমতা বা স্মরণশক্তি এক রকম থাকে না। গ্রীক বিজ্ঞানীদের কাছ থেকে এ তথ্য পাওয়া যায় যে, মানুষের মস্তিষ্কের ১৪ বিলিয়ন স্নায়ুকোষ একে অপরের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে একটা ইলেকট্রো কেমিক্যাল চক্র তৈরি করে, একে অ্যানগ্রাম বলে।

প্রতিটা অ্যানগ্রামের পথই হল স্মরণশক্তি। জেনেটিক বিজ্ঞানীরা বলেন, পিতামাতার স্মরণশক্তি বা মেধাশক্তি বেশি থাকলে সন্তানরাও সে রকম হয়। এজন্য স্মরণশক্তির বংশগতির বৈশিষ্ট্যের একক জিনের ওপর শতকরা ৬০ ভাগ নির্ভরশীল। বাকি ৪০ ভাগ পরিবেশ, পুষ্টিকর খাদ্য ও মস্তিষ্কের চর্চার ওপর নির্ভর করে। গবেষকদের মতে, কোনও শিশু কম বুদ্ধি বা কম স্মরণশক্তিসম্পন্ন জিন বহন করলেও ভালো পরিবেশের কল্যাণে ভালো বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিতে পারে।

সুতরাং সহায়ক পরিবেশ পেলে এবং মস্তিষ্কের কিছু চর্চা করলে স্মরণশক্তি বাড়ানো সম্ভব। জেনে রাখা যেতে পারে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি করার কিছু কৌশল।

আয়ুর্বেদিক উপায়-

প্রাচীন আর্য়ুবেদ চিকিৎসায় স্মরণশক্তি বৃদ্ধির বেশ কিছু উপায় রয়েছে। যেমন কচি বেলপাতা খাঁটি ঘিয়ে ভেজে খেলে স্মরণশক্তি বৃদ্ধি পায়। আবার ব্রাহ্মী শাক এমন একটি ভেষজ উপাদান, যা স্মরণশক্তি বৃদ্ধির নানা ওষুধ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *