‘বনায়নের চুক্তি প্রতি বছর নবায়ন করতে হবে’

‘বনায়নের চুক্তি প্রতি বছর নবায়ন করতে হবে’
‘বনায়নের চুক্তি প্রতি বছর নবায়ন করতে হবে’

সামাজিক বনায়নের জন্য গরিব ও দুস্থদের মধ্যে যে প্লট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে সেগুলোর চুক্তি প্রতিবছর নবায়ন করতে হবে বলে জানিয়েছেন পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. হাছান মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার বিকেলে পরিবেশ ও বন মন্ত্রাণালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ৩৬তম বৈঠক শেষে সংসদের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বর্তমানে সামাজিক বনায়ন প্রকল্পের মাধ্যমে ১ একর করে জমি ১০ বছরের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। সেখানে শর্ত থাকে গাছ লাগাতে হবে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে যে প্লটগুলো বরাদ্দ পাওয়ার পর তাতে বনায়ন না করে বাড়ি বা পুকুর কেটে বসে আছে। তাই প্রস্তাব করা হয়েছে প্রতিবছর চুক্তি নবায়ন করার জন্য। যদি কেউ শর্ত ভঙ্গ করে তাহলে তার চুক্তি বাতিল করারও প্রস্তাব করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

তিনি আরও বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্টে উন্নত দেশগুলো ১৮৯ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। সেই প্রতিশ্রুতির ১৩০ মিলিয়ন ডলার ফান্ডে জমা পড়ে। এর মধ্যে ৮৫ মিলিয়ন ডলার খরচ করতে পেরেছে বাংলাদেশ। বাকী ৪৫ মিলিয়ন ডলার ফেরত গেছে। জলবায়ূ ফান্ডের টাকা ফেরত যাওয়া অত্যান্ত দু:খজনক। যেখানে ক্ষতিপূরণ আদায়ে আমরা এতো সোচ্চার ছিলাম সেখানে আমরা টাকা খরচ করতে না পারায় ফেরত গেলো। উন্নত দেশগুলো ২০১২-২০১৩ সালে জলবায়ু ফান্ডে এই টাকা জমা দেয়। ফান্ডটি ২০১৬ সালের ডিসেম্বর বন্ধ হয়ে যায়।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে পাহাড় ধসের বিষয়টিও সভায় আলোচনা হয়েছে। অনেক সময় দেখা যায় যে কোন কোন সরকারি সংস্থাও একেবারে খাড়া করে পাহাড় কাটে। আমরা এর প্রেক্ষিতে বলেছি যে, ৪০ ডিগ্রির বেশি পাহাড় কাটা যাবে না। আর পাহাড়ে রাস্তা নির্মাণের সময় ঢাল ৪৫ ডিগ্রির বেশি হতে পারবে না।

জাতীয় পরিবেশ নীতির ব্যাপারে তিনি বলেন, গত ৬ তারিখ প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে এ সংক্রান্ত একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদেরকে কিছু সুপারিশ চূড়ান্ত করতে বলেছেন। আমরা আগামী ২০ তারিখ নাগাদ সেসব সুপারিশ চূড়ান্ত করে সংসদীয় কমিটির পক্ষ থেকে জমা দিয়ে দেব।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *