পর্যটকদের আনন্দ ভ্রমনের নতুন ঠিকানা কুয়াকাটার বাউলি বন

(৭১বিডি২৪) কলাপাড়া,পটুয়াখালী:

আনন্দ ভ্রমন আর অবকাশ যাপনের অনন্য নাম কুয়াকাটা। কুয়াকাটা ঘুরতে এসে ভাল লাগেনি এরকম ভ্রমন পিপাসু পর্যটক পাওয়া যাবে না বললেই চলে। কুয়াকাটার বেলাভূমের একই স্পটে দাঁড়িয়ে কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে দেখা যায় সূর্যোদয়-সুর্যাস্তের বিরল মনোরম সৌন্দর্য। ’৯৬ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত কুয়াকাটার নাম শুধু দেশে নয় ছড়িয়ে পড়ে সারা বিশ্বে। দেশের সর্বদক্ষিণে প্রস্তাবিত জেলা কলাপাড়া উপজেলার শেষ প্রান্তে সাগরপারের এ জনপদ কুয়াকাটা।
আর এ কুয়াকাটার মধ্যে আরেকটি অপরুপ সৌন্দর্য পূর্ন জায়গার নাম হল বাউলি বন। ভ্রমন বিলাসি ও পর্যটকদের আনন্দ ভ্রমনের ও অবকাশ সময় কাটানোর অন্যতম মনোরম ও মনমুগ্ধ কর জায়গা হল এ বন। নজরকাড়া প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের কারণে বউলি বনের রয়েছে আলাদা সুখ্যাতি।
প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটক-দর্শনার্থীর পদচারনায় মুখরিত থাকছে বাউলি বনে। প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য তাকে মুগ্ধ করে, ক্লান্তি, মনের জড়তা ঘুচিয়ে দেয়। সেই প্রশান্তির জায়গা হচ্ছে বাউলি বন।
বাউলি বন নৈসর্গিক রূপ অন্যান্য সৈকতের রুপের চেয়ে বহুলাংশে আকর্ষণীয়।
লাল কাকঁড়ার সুখ্যাতি। সাগরপাড়ে তাকালে মনে হয় লাল কার্পেট বিছিয়ে রেখেছে। প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শনার্থী খেলা করছে এ লাল কাঁকড়ার সাথে। রয়েছে ১৫৪ হেক্টর জমির উপর বিশাল উপকূলীয় ঝাউবন। এ বিশাল ঝাউবনের বাগান দেখলে যেকোন পর্যটদের নতুন আনন্দের মাত্রা দেবে। একদিকে বিশাল সাগর আর আরেক দিকে রয়েছে নয়নাবিরাম ঝাউবন সাথে রয়েছে সাগর পারে হাজার হাজার লাল কাঁকড়ার প্রাকৃতিক লুকোচুরি খেলার মনোরম দৃশ্য। বসার জন্য আছে কাঠের টুল, মাথার উপর ছাতির মত নাড়ার ছাউনি দিয়ে চাল তৈরি করা । যা যেকোন পর্যটকদের মন জয় করবেই। রয়েছে বাহারি সামুদ্রিক মাছের খাবারের দোকান। ইচ্ছে করলেই যে কোন পর্যটক তার পছন্দের খাবার দোকানে বসে ভেজে খেতে পারবে। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরের দিকে এখানকার বাসিন্দারা বাউলি বনে পর্যটকদের যাতায়াতের পরিবেশ সৃষ্টি করেন। ২০ জানুয়ারি ২০১৬ সালে পর্যটকদের জন্য দোকান ও মনোরম পরিবেশে বসার ব্যবস্থা করেন এখানকার দোকানীরা। প্রতিমাসে চার থেকে পাঁচটি পিকনিক অনুষ্ঠিত হয় বলে দোকানীর কাছ থেকে জানাগেছে। ডিসেম্বর থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত এখানে প্রতিনিয়ত পর্যটক আসে এ বাউলি বনে। কিভাবে যাবেন এ বাউলি বনে। যারা কুয়াকাটা বেড়াতে এসেছেন তারা মটরসাইকেল, অটো বা টমটমে করে আলীপুর বাজার থেকে চর চাপলি হয়ে দোলাই মার্কেট থেকে কাউয়ারচর এলাকার পূর্ব দিকে গেলেই বাউলি বন।
ঢাকা থেকে কুয়াকাটার দূরত্ব ৩২০ কি.মি.। বরিশাল বিভাগ থেকে ১০৮ কি.মি.। জেলা শহর পটুয়াখালী থেকে ৭০ কি.মি. এবং উপজেলা সদর কলাপাড়া থেকে ১৮ কি.মি। ঢাকা থেকে পটুয়াখালী জেলা সদর পর্যন্ত সরাসরি লঞ্চ যোগাযোগ রয়েছে, লঞ্চ থেকে বাসষ্টান্ড থেকে সরাসরি কুয়াকাটা বাস রয়েছে।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *