নিজ সন্তানকে আঘাত করে প্রতিপক্ষকে হয়রানি

৭১বিডি২৪ডটকম | মু. নজরুল ইসলাম  :


গলাচিপা উপজেলা


পটুয়াখালী গলাচিপা উপজেলায় আমখোলা ইউনিয়নে নিজ সন্তানের পা কেটে এবং বাড়িঘর ভাংচুর করে প্রতিপক্ষের নামে মামলা করে হয়রানি।

গত ১৮/৯/২০১৯ সকাল ১০ ঘটিকায় আমখোলা ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড কিসমত বাওরিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায় দুপক্ষের মধ্যে জমি জমা সংক্রান্ত বিবাদ চলছে অনেক বছর যাবৎ। ১.৩৯ একর জমির পৈতৃক সূত্রে মালিক মোঃ আলাউদ্দিন খন্দকার (৪৮) ভোগ দখল করিতেছেন কিন্তু একই বাড়ির ভূমি দস্যু হিরন মৃধা ও তার স্ত্রী মাকসুদা বেগম, স্থানীয় লাঠিয়াল বাহিনী নিয়ে তাদেরকে মারধর মামলা হামলা করিতেছে। ঠিক উল্লেখিত দিনেও আলাউদ্দিন খন্দকারকে লাঠিয়াল বাহিনী দিয়ে তাড়া করে হিরন মৃধার স্ত্রী মাকসুদা বেগম তার সন্তানের পায়ে দা দিয়ে কুপিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করে এবং গলাচিপা থানায় একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন, যার মামলা নং ১৬/ ১৮/৯/২০১৯ ইং।

উল্লেখ থাকে যে ৬১/২০০৬ নং দেওয়ানী মোকাদ্দমায় ১.৩৯ একর জমি আলাউদ্দিন খন্দকার রায় পায়। তারপরেও উক্ত জমি তিনি ভোগদখল করিতে পারছেনা তার বিরুদ্ধে আবার একটি দেওয়ানি মামলা করা হয়। অসহায় আলাউদ্দিন খন্দকার উপায়ন্তর না দেখিয়া গলাচিপা উপজেলা চেয়ারম্যানের দারস্ত হন।

এর পর উপজেলা চেয়ারম্যান দুই পক্ষকে ডাকিয়া আদালতের মোকাদ্দমা দ্বিতীয় বার নিঃস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তৃতীয় পক্ষের কৃষক মোঃ নজরুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে চাষাবাদ করার জন্য সিল সাক্ষর যুক্ত একটি অনুমতি পত্রদেন। এলাকা বাসি এবং তৃতীয় পক্ষ নজরুল ইসলাম বলেন উপজেলা চেয়ারম্যান এর অনুমতি সাপেক্ষে আমি জমি চাষ করে রোপন করি কিন্তু তারপর দিন ১৮/৯/২০১৯ সকাল ৭ঘটিকার সময় ভূমিদস্যু হিরন মৃধা ও তার সাঙ্গোপাঙ্গরা রোপা বীজ তুলে জোর করে আবার সেই জমিতে তারা নতুন করে বীজ রোপন করে। আলাউদ্দিন খন্দকার তাদের ভয়ে বাড়ি ঘড় ছেড়ে এখন আত্মীয় স্বজনদের বাড়িতে থাকেন।

এ ঘটনার বিষয় গলাচিপা থানার এস আই মোঃ নজরুল ইসলাম জানিয়েছেন, মামলার তদন্ত চলছে অপরাধীদের চিহ্নিত করে অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *