জলদস্যু-বনদস্যুদের নির্মূলে সুন্দরবনে চিরুনি অভিযান চালানো হবে : সরাষ্ট্রমন্ত্রী

৭১বিডি২৪.কম । করেসপন্ডেন্ট;


barisalবরিশাল : সরাষ্ট্রমন্ত্রী মোঃ আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, সুন্দরবন থেকে জলদস্যু-বনদস্যুদের নির্মূল করতে চিরুনি অভিযান চালানো হবে। তার আগেই এখনো যারা রয়েছেন আত্মসমর্পন করেননি তারা আত্মসমর্পন করুন। স্বাভাবিক, সামাজিক জীবনে ফিরে আসুন।

আজ সোমবার বেলা সাড়ে ১২ টায় বরিশাল নগরের রুপাতলিস্থ র‌্যাব-৮ এর সদর দফতরে খোকাবাবু বাহিনীর” প্রধান মোঃ কবিরুল ইসলাম ওরফে খোকাবাবু সহ ১২ জন সক্রিয় সদস্য বিপুল পরিমান অস্ত্র ও গোলাবারুদসহ র‌্যাবের নিকট আনুষ্ঠানিক আত্মসমর্পন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, বাহির থেকে যারা এদের সহায়তা করছেন তাদেরও চিহ্নিত করে উৎক্ষাত করা হবে। যাদের পরিণতি হবে আরো ভয়াবহ, তাদেরও আইনের আওতায় আনা হবে।

আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, অপারসম্ভাবনাময় সুন্দরবন বিনষ্ট হতে দেবো না। যারা এখন আত্মসমর্পন করলেন তাদের আইনি সহায়তাসহ পুর্নঃবাসনের জন্য সহায়তা করা হবে। তবে তাদের বিরুদ্ধে হত্যা বা সুর্নিদিষ্ট অভিযোগ না থাকলে তা নিজেদের ফেইস করতে হবে। কারন আইন-আইনের গতিতে চলবে।

আজ দেশের নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীগুলো তাদের সততা, নিষ্ঠার মধ্য দিয়ে দেশপ্রেমের পরিচয় দিচ্ছে। তারা জীবন বাজি রেখে দস্যুতা, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ দমন সফলতার সহিত একের পর এক অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে।

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি সংবাদকর্মীদেরও ধন্যবাদ। তারা বিভিন্ন প্রতিবেদনের মধ্য দিয়ে আমাদেরকে সহায়তা করছে।

এদেশে সুশাসনের মধ্য দিয়েই দস্যুতা, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ দমন করা হবে। এই সরকারের আমলেই পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি চুক্তি করা হয়। যারফলে আজ সেখানে মানুষ শান্তিতে বসবাস করছে।

মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের দস্যুতা দমন ও আত্মসমর্পনকারীদের পুর্নঃবাসনে নানান দিক নির্দেশনা দিয়েছেন। তার নির্দেশ মতো এসব আত্মসমর্পনকারীরা যাতে সামাজিক ও স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে পারে সে লক্ষে কাজ করা হবে।

উল্লেখ্য র‌্যাব-৮, সুন্দরবনের শরণখোলা এবং চাঁদপাই রেঞ্জে ২৫ নভেম্বর থেকে ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত বিশেষ অভিযান পরিচালনা করেন।

অভিযানে খোকাবাবু দস্যু বাহিনীর সদস্যরা কোনঠাসা অবস্থায় পড়ে গেলে তারা র‌্যাবের নিকট নিঃশর্ত আতœসমর্পণ করতে চায়।

এসময় খোকাবাবু দস্যু বাহিনীর প্রধান মোঃ কবিরুল ইসলাম ওরফে খোকাবাবু(৩৩) এবং ১১ সদস্য মোঃ আমিনুর ইসলাম(৩২), মোঃ শাহজাহান গাজী(৩০), মোঃ আব্দুল আজিজ(৪৪), মোঃ মিজানুর রহমান(৩৬), মোঃ রবিউল ইসলাম(২৫), মোঃ ওসমান গনি(৩৩), মোঃ রফিকুল গাজী(৩৩), মোঃ ইয়াছিন আলী গাজী(২৫), মোঃ মহিদুল ইসলাম(৩৩), মোঃ মজিবর রহমান(৩৮), মোঃ কালাম(৩৫) আত্মসমর্পন করে। যাদের সবার বাড়িই সাতক্ষীরা জেলার বিভিন্ন এলাকায়।

আত্মসমর্পনের পর দস্যুরা তাদের ব্যবহৃত বনের ভিতর লুকানো কিছু অস্ত্র ও গোলাবারুদ হস্তান্তর করতে চায়।

যারমধ্যে ৬টি বিদেশী একনালা বন্দুক, ৪টি বিদেশী দোনালা বন্দুক, ১টি পয়েন্ট ২২ বোর বিদেশী এয়ার রাইফেল, ৬টি সাটারগান, ২টি এয়ারগান, ২টি ওয়ান শুটারগান এবং ১টি বিদেশী কাটা রাইফেলসহ সর্বমোট ২২টি আগ্নেয়াস্ত্র এবং সর্বমোট ১ হাজার ৩ রাউন্ড বিভিন্ন প্রকার গোলাবারুদ রয়েছে।

র‌্যাব-৮ এর উপঅধিনায়ক মেজর আদনান কবির জানান, ‘‘খোকাবাবু বাহিনী’’ সাম্প্রতিক সময়ে সুন্দরবনের অন্যতম সংগঠিত এবং সক্রিয় জলদস্যু বাহিনী। এই বাহিনী সকল অস্ত্র-গোলাবারুদসহ সদলবলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নিকট আত্মসমর্পন এর ফলে বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবন ও তৎসংলগ্ন বঙ্গোপসাগরের উপকূলীয় অঞ্চলে নিরবিচ্ছিন্ন মৎস্য আহরণ সম্ভবপর হবে। বনজীবি এবং মৎস্যজীবি সাধারণ মানুষের মধ্যে এর ফলে ব্যাপক আশার সঞ্চার হবে এবং দস্যুবৃত্তিতে নিয়োজিত অন্যান্য বনদস্যু/জলদস্যুরাও স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে দারুনভাবে উৎসাহিত হবে।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *