গলাচিপা-দশমিনার তৃণমূলের জনসাধারণ তথা গণমানুষের বিশ্ব নেত্রী দেশ রত্ন বাংলার প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এর কাছে প্রাণের আর্তি, প্রার্থনা ও দাবি!!

৭১বিডি২৪ডটকম| সঞ্জিব দাস,


গলাচিপা-দশমিনার তৃণমূলের জনসাধারণ তথা গণমানুষের বিশ্ব নেত্রী দেশ রত্ন বাংলার প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এর কাছে প্রাণের আর্তি, প্রার্থনা ও দাবি!!


গলাচিপা(পটুয়াখালী): দক্ষিণ বাংলার শান্তির অগ্রদূত এতোদঞ্চলের গণ মানুষের আশা আকাঙ্খার প্রাণ প্রদীপ দরিদ্র মানুষের ভাগ্য উন্নয়নের স্বপ্নদ্রষ্টা উন্নয়নের পথিকৃৎ দক্ষিণের শিক্ষা বিস্তারের অগ্রসেনানী, অন্যায়-অবিচার, জালেম জুলুম, নির্যাতন নিপীড়ন, সন্ত্রাস, সাম্প্রদায়িকতা, ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে রণতূর্য বাদক, নৈরাজ্য নাশকতার যমদূত, উৎপীড়িত, নিপীড়িত, নিস্পেষিত, নির্যাতিত অসহায় নিরীহ শান্তিপ্রিয় জনসাধারণের পক্ষে শামিল হওয়া কাঙ্খিত কিংবদন্তী অগ্নি পুরুষ, ১৯৮১-৮৩ সালের অগ্নিস্ফুলিঙ্গ মুজিববাদী ছাত্রলীগের চরম সংকটময় দিনগুলোতে দায়িত্বপ্রাপ্ত ইস্পাত কঠিন বিপ্লবী কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের (মুজিববাদী) সাধারণ সম্পাদক, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাবেক ত্যাগী কেন্দ্রীয় নেতা, বঙ্গোপসাগর বিধৌত দীপাঞ্চলের অবারিত চির হরিৎ ছায়া সুনিবির পটুয়াখালী জেলাধীন ১১৩, পটুয়াখালী-০৩, গলাচিপা দশমিনা থেকে চার চার বার (১৯৯১,১৯৯৬,২০০১,২০১৪) গণ মানুষের বিপুল ভোটে নির্বাচিত জন নেতা আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন এমপি (১৯৯১ প্রাপ্ত ভোট ৩২ হাজার, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ১৯ হাজার, ১৯৯৬ – প্রাপ্ত ভোট ৫০ হাজার, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ৩০ হাজার, ২০০১ প্রাপ্ত ভোট ৭৫ হাজার, নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ৬২ হাজার, ২০১৪- নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীর জামানত বাজেয়াপ্ত করে দেড় লক্ষাধিক ভোট পেয়ে ৪র্থ বারের মত জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন), ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ দীর্ঘ ২১ বছর পর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হওয়ার ২ বছর পর জননেত্রী শেখ হাসিনার আনুকুল্যে দক্ষিণঞ্চালের অবহেলিত জনপদের সার্বিক উন্নয়নের স্বার্থে অন্যতম আস্থাভাজন হিসেবে ৩ বছরের জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সুদক্ষ, অভিজ্ঞ ও সফল বস্ত্র প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং এতোদঞ্চলের সড়ক যোগাযোগ, বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠাকরন (গলাচিপা মহিলা ডিগ্রী কলেজ, গলাচিপা টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট, গলাচিপাধীন পাতাবুনিয়া কৃষি ইনস্টিটিউট, লামনা টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট, গুয়া বাঁশবাড়িয়া বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, গলাচিপা-দশমিনার বিভিন্ন প্রত্যন্ত অঞ্চলের রাস্তাঘাট নির্মান করত: বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান সহ জন সাধারণের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতকরন প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র (গ্রাম্য হাসপাতাল), গলাচিপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর নতুন ভবন নির্মাণ, পটুয়াখালী জেলার সাথে ও পার্শ্ববর্তী বরগুনা জেলার আমতলী উপজেলার সাথে দুটি দীর্ঘ সংযোগ সড়ক নির্মান, দশমিনা ও গলাচিপা উপজেলার ২টি সংযোগ সড়ক, উভয় উপজেলা হেড কোয়ার্টারের সাথে সংযুক্ত আন্ত-ইউনিয়ন সংযোগ সড়কসমূহ এ অঞ্চলে যোগাযোগ ক্ষেত্রে এক অভূতপূর্ব বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধিত হয়, গলাচিপা হেলিপ্যাড কাম কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দান, গলাচিপা কেন্দ্রীয় কবরস্থান, গলাচিপা দশমিনার বিভিন্ন মহাবিদ্যালয়, বিভিন্ন মাধ্যমিক ও নি¤œ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাদ্রাসা বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়, পল্লীবাসীর সুবির্ধাথে বিভিন্ন বড় ইউনিয়ন ভেঙ্গে নতুন ইউনিয়ন গঠন সহ প্রায় সকল ইউনিয়নে নতুন ইউনিয়ন পরিষদ ভবন নির্মান, বিভিন্ন স্থানে বড় বড় খালের উপর ব্রিজ এবং কালভার্ট নির্মান, এছাড়া বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানের ভৌত অবকাঠামো নির্মান ও সংস্কার কাজ, জনসাধারণের ন্যায় বিচার ও প্রশাসনিক সুবির্ধাথে গলাচিপা ও দশমিনা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত স্থাপন, গলাচিপা পুলিশ ষ্টেশনের নতুন অবকাঠামো নির্মান, বিভিন্ন ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ও বড় বড় হাট বাজার সংলগ্ন স্থানে পুলিশ ফাড়ি স্থাপন, চরমপন্থি সংগঠনের মূলোৎপাটন করে পূর্বের সন্ত্রাস প্রবণ অঞ্চলগুলোর জনসাধারণের শান্তি প্রতিষ্ঠায় এবং ন্যায় বিচার ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা কল্পে জলদস্যু ও ভূমি দস্যু বিতারিত করতে অগ্রগামী ভূমিকা পালন করেন।

জাতীয় সংসদ সদস্য হিসেবে (সরকারী ও বিরোধী দলীয়) এবং প্রতিমন্ত্রী মেয়াদ কালে এ অঞ্চলের গণ মানুষের সার্বিক উন্নয়ন, শান্তি সমৃদ্ধি, শিক্ষা সংস্কৃতি ও আর্থসামাজিক অবস্থার ব্যাপক উৎকর্ষ সাধনে সদা তৎপর থেকে নিরলস পরিশ্রম করে গেছেন। ২০১৪ সালে ৪র্থ বারের মত সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর বিশ্ব নেত্রী দেশরত্ন বাংলার প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রনালয়ে সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন কালে গলাচিপা দশমিনার বিভিন্ন প্রত্যন্ত অঞ্চলে প্রাকৃতিক দূর্যোগ মোকাবেলায় এবং কোমলমতি শিশুদের শিক্ষাগ্রহনের নিমিত্তে প্রায় অর্ধশত সাইক্লোন সেল্টার কাম প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মান করে গলাচিপা দশমিনা এলাকায় শিক্ষা বিস্তারে আলোক বর্তিকা হিসেবে যুগান্তরকারী ভূমিকা পালন করেন। বিভিন্ন প্রত্যন্ত অঞ্চলের হাট বাজার সমূহে সোলার প্যানেল স্থাপন করেন। দরিদ্রপীড়িত (জেলে, মাঝি) মানুষের মাঝে সোলার লন্ঠন বিতরণ, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের (কলেজ, মাদ্রাসা, মাধ্যমিক ও নি¤œ মাধ্যমিক ও প্রাথমিক স্কুল) ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে টিফিন বক্স ও পানির পট বিতরণ করেন (প্রায় ৫৮ হাজার) এবং এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহকে সন্ত্রাসবাদ জঙ্গিবাদ ও মাদক মুক্ত রাখার প্রায়াসে খেলাধূলার জন্য ক্রীড়াসামগ্রী বিতরন করে ব্যাপক সাড়া ফেলেন। বিশেষ সূত্র মতে জানা যায়, দূরবর্তী ও দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয়ে গমনাগমনের জন্য বাই সাইকেল বিতরন করবেন। এছাড়া গলাচিপা ও দশমিনা উপজেলার বিভিন্ন প্রত্যন্ত অঞ্চলে পল্লী বিদ্যুৎ এর শুভ উদ্বোধন করে বিদ্যুৎ এর সংযোগ সম্প্রসারণ করতঃ গলাচিপা-দশমিনাকে আরও আলোকিত করার মানসে দিন রাত কঠোর পরিশ্রম করেছেন। বিদ্যুৎ এর সেবা মানুষের ঘরে ঘরে পৌছে দিতে সদা জাগ্রত আছেন। এতোদঞ্চলের সাধারণ মানুষ বিদ্যুৎ শক্তিকে কাজে লাগিয়ে কৃষি কাজ, সেচ, গবাদি পশু ও হাঁস-মুরগি পালন এবং বৃক্ষ রোপনের মাধ্যমে আত্ম-কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারেন এবং সংখ্যালঘুসহ সকল সম্প্রদায়ের মানুষ নির্ভিঘেœ বসবাস, ব্যবসা-বানিজ্য চালিয়ে যেতে পারেন সেজন্য তিনি আকুন্ঠ শ্রম, মেধা ও মননের সম্মিলন ঘটিয়ে এ অঞ্চলকে একটি সুন্দর ও সু-সৃঙ্খল, নিয়মতান্ত্রিক সৌহার্দপূর্ণ সমাজ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠায় অদ্যবধি অবিরাম প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা পরবর্তী সময়কালে এ দ্বীপাঞ্চলে জননেতা জনাব আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন এমপি মহোদয়ের মত মা মাটি গনমানুষের ভাগ্যোন্নয়নের তথা সার্বিক উন্নয়নের স্বপ্নদ্রষ্টা উন্নয়নের কান্ডারি কাঙ্খিত এমন নেতার আর্বিভাব ঘটেনি। আপনার বিচক্ষনতা ও এতোদঞ্চলের মানুষের প্রতি অপরিসীম দয়া ও সু-দৃষ্টির কারণে জাহাঙ্গীর ভাইয়ের মত উন্নয়ন ও কল্যানধর্মী সুযোগ্য নেতা পেয়েছি। সুতারং বিশ্ব নেত্রী বাংলার জন দরদি, দেশরতœ, বাংলার প্রধান মন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের তিন যুগ ধরে সফল দূরদর্শী নেতৃত্বদানকারী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সম্পদ ও সভাপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য জেষ্ঠ্য তনয়া বিদূষী ও মহিয়সী ব্যক্তিত্ব ও গণতন্ত্রের মানস কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা এমপি এর নিকট গলাচিপা দশমিনার গণমানুষের প্রাণের আকুল প্রার্থনা ও সবিনয় নিবেদন এই যে, এ বিস্তুৃর্ণ অঞ্চলের মানুষের প্রতি আপনার অসীম কৃপা বর্ষণ করত: এ অঞ্চলের গণমানুষের প্রাণের দাবি গলাচিপার রামনাবাদ নদীতে ব্রিজ নির্মান এবং গলাচিপাকে জেলা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করার লক্ষ্যে এ অঞ্চলের জন সাধারণের দীর্ঘ দিনের লালিত স্বপ্নকে বাস্তবে রূপদান করে ভিশন ২০২১ এবং ২০৪১ বাস্তবায়ন করে এ অঞ্চলের পশ্চাৎগামী মানুষকে বিশ্বায়ন ও ডিজিটালাইজেশনের আলোকে তথ্য ও প্রযুক্তি নির্ভর উন্নত বিশ্বের সাথে সুপরিচিত করতে ও এ অঞ্চলের জনগনের সার্বিক কল্যান সাধনে আধুনিক ও আলোকিত গলাচিপা ও দশমিনা বিনির্মানে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এতোদঞ্চলের গণমানুষের সার্বিক উন্নয়নের ও কল্যানের রূপকার সব্যসাচী উন্নয়ন মনস্ক সাধক পুরুষ এ অঞ্চলের মানুষের প্রাণ পুরুষ, গণমানুষের ভালোবাসায় সিক্ত বার বার বিপুল ভোটে নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য এবং দলমত জাতি ধর্ম বর্ণ আবাল বৃদ্ধ বণিতার সার্বজনীন নেতা ও সার্বিক আস্থার প্রতীক জননেতা আলহাজ্ব আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন এমপি (আমাদের আমজনতার অতি আপনজন আত্মার আত্মীয় সকলের সু-পরিচিত মুখ আমাদের জাহাঙ্গীর ভাই) কে পুনরায় বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ মনোনীত জাতীয় সংসদ সদস্য প্রার্থী হিসেবে পেতে চাই এবং নদী মাতৃক ভাটি অঞ্চলের নৌকার মাঝি তথা সার্বিক উন্নয়নের এবং স্বচ্ছ ও স্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিবেশ বজায় রাখতে আমরা তাকে পুনরায় আমাদের উন্নয়নের রূপকার হিসেবে পাওয়ার অধীর আগ্রহের প্রতিক্ষায় রইলাম।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *