একজন মানুষও বাড়ি ছাড়া থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী

Sekhasina

ঢাকা শহরে শিশুদের জন্য খেলার মাঠ, বড়দের জন্য হাঁটার জায়গা এবং জলাশয় রাখার তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শনিবার রাজধানীর মতিঝিলে সরকারি কর্মচারীদের জন্য বহুতল ভবনের উদ্বোধন শেষে প্রধানমন্ত্রী এ তাগিদ দেন।

এ সময় রাজধানীর আজিমপুর ও মতিঝিলে সরকারি কর্মচারীদের জন্য ১০টি বহুতল ভবনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর মধ্যে আজিমপুরে রয়েছে ছয়টি, মতিঝিলে রয়েছে চারটি বহুতল ভবন। মতিঝিলে নতুন ভবনের উদ্বোধন করার পর সেখানকার পুরনো জরাজীর্ণ ভবন ভেঙে মাঠ তৈরির নির্দেশনা দেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, রাজধানীতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য ৯ হাজার ৭০২টি ফ্লাট নির্মাণ করার জন্য প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে এসব ফ্লাট নির্মাণ করে আবাসন সমস্যার সমাধান করা হবে। শুধু সরকারি কর্মচারী-কর্মকর্তা নয়, বেসরকারিভাবেও মানুষ যেন কিস্তিতে ফ্ল্যাট নিতে পারে সরকার সে ব্যবস্থা করছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পরিকল্পনা ছিল সব মানুষের জন্য গৃহনির্মাণ নিশ্চিত করা। তিনি বাস্তবায়ন করতে পারেননি। আমরা তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছি। ইনশাল্লাহ আমরা জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে পারব।

আপনারা যারা এসব ফ্ল্যাটে বসবাস করবেন তাদের কাছে আমার কিছু অনুরোধ থাকবে। তা হলো বিদ্যুৎ, পানি ব্যবহার হিসেব করে করবেন। নিজেদের ফ্ল্যাট নিজেরা পরিষ্কার রাখবেন। এদিন মতিঝিল সরকারি কলোনিতে বহুতল আবাসিক ভবন উদ্বোধনের পর আজিমপুর সরকারি কলোনিতেও বহুতল আবাসিক ভবনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, মতিঝিলে সরকারি কর্মচারীদের জন্য ৪টি ২০তলা ভবনে ৫৩২টি ফ্ল্যাট তৈরি হয়েছে। এছাড়া মতিঝিলে তিনটি জোনে ভাগ করে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ৯ হাজার ফ্ল্যাট তৈরি হবে ক্রমান্বয়ে।

সরকারি কর্মচারীদের জন্য ৪০ শতাংশ আবাসন সুবিধা নিশ্চিতের অংশ হিসেবে মতিঝিল ও আজিমপুর সরকারি কলোনিতে প্রথম দফায় ৯৮৮টি ফ্ল্যাট নির্মাণ করেছে সরকার। এর মধ্যে মতিঝিলে ৪টি ২০তলা ভবনে ৫৩২ এবং আজিমপুরে ৬টি ২০তলা ভবনে ৪৫৬ ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হয়েছে। মতিঝিলে ব্যয় ২২১ কোটি ৮৪ লাখ টাকা এবং আজিমপুরে ২৭৫ কোটি টাকা।

উক্ত অনুষ্ঠানে গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি, গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির সভাপতি দবিরুল ইসলাম, মন্ত্রণালয়ের সচিব শহীদুল্লাহ খন্দকারসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *