ইভটিজিং প্রতিরোধে সরকারী রাস্তা বন্ধ করে দিলো ছাত্রলীগ

বরিশাল : 

বরিশাল শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় হাসপাতাল কম্পাউন্ডের ভেতরে একটি সরকারী রাস্তা দেয়াল দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে ছাত্রলীগ। বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের নেতা ফোরকান উদ্দিনের নির্দেশে এ কাজটি করা হয় বুধবার গভীর রাতে। এরফলে সকাল থেকে হাসপাতালের জরুরী বিভাগ, ডক্টরস কোয়ার্টার, পুলিশ কমিশনার কার্যালয় সহ বিভিন্ন স্থানে যেতে যানবাহনগুলোকে বিপত্তিতে পড়তে হচ্ছে। তাদের গাড়ি ঘুরিয়ে প্রায় আধকিলোমিটার পথ বেশি পাড়ি দিতে হচ্ছে। পাশাপাশি শĽাজনক রোগীদের নিয়ে সকাল থেকেই স্বজনরা কয়েকগুন বেশি ভোগান্তি পোহাচ্ছেন। তবে সরকারী এ রাস্তা আটকে দেয়ার বিষয়ে কলেজ প্রশাসন বা গণপূর্ত বিভাগের কেউ কিছুই জানেন না।

কলেজ ছাত্রলীগের নেতা ফোরকান জানান, মঙ্গলবার রাতে তাদের কলেজের ছাত্রীদের উদ্দেশ্য করে কতিপয় বহিরাগত যুবক অশ্লিল কর্থাবার্তা বলে। যা ওই ছাত্রীরা কলেজ ছাত্রদের জানালে তারা এসে ধাওয়া দিয়ে নগরের কালুশাহ সড়কের বাসিন্দা ইলু নামে একজনকে আটক করে পুলিশে তুলে দেয়। এরপর ছাত্রীরা বিষয়টি নিয়ে কলেজ ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের দুষলে তারা রাস্তার ওপরে দেয়াল দেয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এতে করে ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের আসা কমবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। পাশাপাশি গাড়িগুলো ঘুরিয়ে হাসপাতালের অণ্য পাশের রাস্তা দিয়ে মেডিকেলের সামনে যেতে পারবে, এতে কোন সমস্যা হবে না বলেও জানান তিনি। আর এ কাজে কলেজের ছাত্র কল্যান পরিষদের ফান্ড থেকে ৬ হাজার টাকা খরচ করা হয়েছে বলেও জানান ফোরকান। তবে এ বিষয়ে সাধারন ছাত্ররা দ্বিমত পোষন করে জানিয়েছেন, রাত ১০ টার পর মেয়েদের বাহিরে থাকার নিয়ম নাই। এরমধ্যে ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের আনাগোনা কম থাকে। যারা আসছে তারাও ছাত্রলীগ নেতা যারা দেয়াল করছেন তাদের হাত ধরে আসছে। কিন্তু এই বেরিকেটের মাধ্যমে এদিকটায় যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হলো। যার ফলে সকল ধরনের অপরাধ প্রবণতা বাড়বে। তাদের দাবী এভাবে যান চলাচল বন্ধ করার জন্য বেরিকেট না দিয়ে একবারে দেয়াল করে আটকে দেয়া হোক। নয়তো কলেজের প্রশাসনিক ভবনকে ঘিরে মাদক ও অশ্লীল কর্মকান্ড আরো বাড়বে। আর সাধারণ ছাত্রীরা বলছেন, ছাত্রলীগে নেতার ঘনিষ্টজনের জন্য এখন সবাইকে ভোগান্তিতে পড়তে হবে, কোন কাজে হোষ্টেল থেকে বের হলে বাড়তি ভাড়া যেমন গুনতে হবে, তেমনি বেশি পথ ঘুরো যাওয়ায় আরো নিরাপত্তা ঝুকি বাড়বে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোরতাই এটি রোধ করতে পারবে।

এ বিষয়ে গনপূর্তের মেডিকেল শাখার সহকারী প্রকৌশলী বিধান চন্দ্র মজুমদার বলেন, আমরা এভাবে সড়ক আটকে দেয়ার বিষয়ে কোন চিঠি বা নির্দেশনা পাইনি। কে বা কারা রাতের বেলা সরকারী সড়কের ওপর দেয়ালের নামে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে তাও জানি না। যেটুকু দেয়াল করে রাস্তা আটকে দেয়া হয়েছে তাতে অপরাধমূলক কর্মকান্ড কমবে বলেও মনে হয় না। সরকারের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করার কোন কাজে আমরা ছিলাম না, নেই। এটা যদি কলেজ প্রশাসন ভেঙে দিতে বলে তবে তাই করা হবে। এ বিষয়ে জানতে কলেজ অধ্যক্ষ ডাঃ ভাস্কর সাহা জানান, বিষয়টি নিয়ে তারা ভেবে দেখছেন, দু’একদিনের মধ্যেই তারা এটি ভেঙে ফেলবেন।

Recommended For You

About the Author: HumayrA

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *