শিরোনাম :
গলাচিপায় সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার গলাচিপায় আদালতের স্থিতি অবস্থা অমান্য করে বালু ভরাট পাবনায় ১০ লক্ষ টাকা জরিমানাসহ ৮৯ লক্ষ টাকার যৌন উত্তেজক সিরাপ জব্দ অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটাতে দিনাজপুরে “গার্লস অফ হেভেন”র ১০ হাজার সদস্যের আত্মপ্রকাশ বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে দিনাজপুরে সেনাবাহিনীর খাদ্যসামগ্রী বিতরণ গলাচিপায় র‌্যাবের অভিযানে দুই মানবপাচারকারী গ্রেফতার দেশের বাজারে নতুন ফোন Infinix Note 7 গলাচিপায় শুভসংঘের আয়োজনে অসহায় ২০ শিক্ষার্থীকের আর্থিক সহায়তা গলাচিপায় মৎস্য অবমুক্ত করণ কার্যক্রমের শুভ উদ্ভোধন পাবনা পৌরসভায় ৩ মুক্তিযোদ্ধা’র নামকরনে ৩ টি সড়কের উদ্বোধন
রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:১৭ অপরাহ্ন
নোটিশ বোর্ড :
দেশের সকল বিভাগের জেলা, উপজেলা, থানা পর্যায়ে প্রতিনিধি আবশ্যক আগ্রহী প্রার্থীগন আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। মোবাইল নম্বরঃ +8801618833566, ইমেইলঃ 71bd24@gmail.com

আবরার হত্যা : পলাতক ৪ আসামির সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ

রিপোর্টার / ১৬৪ শেয়ার
আপডেটের সময়ঃ মঙ্গলবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৯
আবরার হত্যা : পলাতক ৪ আসামির সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় পলাতক চার আসামির সম্পদ ক্রোকের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার ঢাকার এডিশনাল চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট কায়সারুল ইসলাম এই আদেশ দেন।

আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) হেমায়েত উদ্দিন খান বলেন, আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার পলাতক চার আসামির বিরুদ্ধে আগে আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছিলেন। তাঁদের গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি—এমন প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয় পুলিশ। আদালত আজ এই চার পলাতক আসামির সম্পদ ক্রোকের আদেশ দিয়েছেন। এ ছাড়া তাঁদের বিরুদ্ধে হুলিয়া জারি করেছেন। মামলার পরবর্তী শুনানির জন্য ৫ জানুয়ারি তারিখ ধার্য করেছেন আদালত।

যে চার আসামির বিরুদ্ধে হুলিয়া জারি করার আদেশ হয়েছে, তাঁরা হলেন মোর্শেদুজ্জামান জিসান, এহতেশামুল রাব্বি তানিম, মোর্শেদ অমত্য ইসলাম ও মুজতবা রাফিদ।

বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় গত ১৩ নভেম্বর ২৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। আসামিদের মধ্যে ২১ জন কারাগারে আছেন।

কারাগারে থাকা আসামিরা হলেন- বুয়েট ছাত্রলীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মো. অনিক সরকার, উপ-সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক ইফতি মোশাররেফ সকাল, ক্রীড়া সম্পাদক মো. মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান রবিন, মো. মনিরুজ্জামান মনির, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভীর, শিক্ষার্থী মো. মুজাহিদুর রহমান ও এএসএম নাজমুস সাদাত, বুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুহতামিম ফুয়াদ, আইন বিষয়ক উপ-সম্পাদক অমিত সাহা, কর্মী মুনতাসির আল জেমি, গ্রন্থ ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক ইসাতিয়াক আহম্মেদ মুন্না, শিক্ষার্থী আবরারের রুমমেট মিজানুর রহমান, শিক্ষার্থী শাসছুল আরেফিন রাফাত, আকাশ হোসেন, মো. মাজেদুর রহমান মাজেদ, শামীম বিল্লাহ, মুয়াজ ওরফে আবু হুরায়রা ও এস এম মাহমুদ সেতু। যাদের মধ্যে প্রথম আটজন আদালতে স্বীকারোক্তি করেছেন।

উল্লেখ্য, আবরার বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) ছাত্র ছিলেন। তিনি থাকতেন বুয়েটের শেরেবাংলা হলের নিচতলার ১০১১ নম্বর কক্ষে। গত ৬ অক্টোবর একই হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে তাকে নির্যাতন করে তাকে হত্যা করা হয়। রাত ৩টার দিকে হল থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। হত্যাকণ্ডের পর তার বাবা বরকত উল্লাহ ১৯ জনকে আসামি করে গত ৭ অক্টোবর সন্ধ্যার পর চকবাজার থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো সংবাদ